আগামী ৫ আগস্টের পরও কঠোর লকডাউন বহালের সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আজ শুক্রবার এই সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এর আগে গত ২৩ জুলাই থেকে দেশে ‘সবচেয়ে কঠোর লকডাউন’ শুরু হয়,

যা আগামি ৫ আগস্ট পর্যন্ত বহাল থাকবে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জানানো হয়। এতে বলা হয়, খুব জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে বের হলে তাকে শাস্তির আওতায় আনা হবে। বিস্তারিত আসছে…

আরো পড়ুন: চট্টগ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত: চলমান বৃষ্টিপাতে চট্টগ্রাম নগর ও উপজেলার বিভিন্ন নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। বিভিন্ন উপজেলায় বসতবাড়িতেও পানি প্রবেশ করার খবর পাওয়া গেছে। আজ শুক্রবার (৩০ জুলাই) সকালে খোঁজ নিয়ে নগরের হালিশহর, আগ্রাবাদ, চান্দগাঁও ও বাকলিয়াসহ বিভিন্ন এলাকার কোথাও হাঁটু আবার কোথাও কোমর পরিমাণ পানিতে তলিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এসব এলাকায় জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়া লোকজন মারাত্মক ভোগান্তিতে পড়েছেন। ভারি বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলে সাঙ্গু নদীর বাঁধ ভেঙে সাতকানিয়া ও চন্দানাইশ উপজেলার বিভিন্ন নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকা কোথাও হাঁটু, কোথাও কোমর, আবার কোথাও গলা সমান পানিতে তলিয়ে গেছে। কোনো কোনো জায়গায় বসতবাড়িতেও ঢুকে পড়েছে পানি।

এ ব্যাপারে সাতকানিয়ার ঢেমশা ইউনিয়নের বাসিন্দা মো. এহসান বলেন, ‘সাঙ্গু নদীর বাঁধ ভেঙে আমাদের উপজেলার ধর্মপুর, বাজালিয়া, ঢেমশা, পশ্চিম ঢেমশা, কেঁওচিয়া, কালিয়াইশ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। আমাদের বসতবাড়িতেও পানি ঢুকে পড়েছে। আমরা কোথাও চলাফেরা করতে পারছি না।’

সাঙ্গু নদী খননে কাজ করা একটি বার্জের নদীটির চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের দোহাজারী এলাকায় স্থাপিত ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। গতকাল (বৃহস্পতিবার) সকালে পাহাড়ি ঢলের প্রভাবে উত্তর কালিয়াইশ থেকে বার্জটি নেমে এসে ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে করে ব্রিজটিতে হালকা ফাটল ধরে।